উলিপুরে ইউনিয়ন ভূমি অফিস নানাবিধ সমস্যায় জর্জরিত

নয়ন দাস, কুড়িগ্রাম জেলা প্রতিনিধিঃ
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২২
  • ৯৮ বার পঠিত

 

কুড়িগ্রামের উলিপুর উপজেলার একটি ইউনিয়নে গত তিন মাস থেকে খাজনার রশিদ বই না থাকায় ভোগান্তিতে পড়ছেন জমির মালিক গন তাছাড়াও অনিয়মিত ভাবে অফিসের দায়িত্ব পালন, বন্যা আশ্রয়কেন্দ্রে অফিসের কার্যক্রমসহ নানাবিধ সমস্যায় জর্জরিত ভূমি অফিস।
গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে সরেজমিনে জানা গেছে, উলিপুর উপজেলার বেগমগঞ্জ ইউনিয়ন ভূমি অফিস উপস্থিত হলে তালাবদ্ধ পাওয়া যায়।

জমির মালিক হষরত আলী,শমসের, ভোলা আমিন,কাসেম বেশ কয়েকজন জানান গত জুলাই মাস থেকে ভূমি উন্নয়ন কর পরিশোধ করতে না পারায় জমি রেজিস্ট্রি কৃষি লোন ও নামজারি করতে ভোগান্তিতে পড়েছে ইউনিয়নের জমির নিজ মালিকেরা।তাছাড়াও ইতিপূর্বে ইউনিয়ন ভূমি অফিসের জায়গা ধরলা নদী গর্ভে বিলীন হয়ে যাওয়ায় গত২০১৩ইং সাল হইতে অফিসের কার্যক্রম অস্থায়ীভাবে আক্কেল মামুদ বন্যা আশ্রয় কেন্দ্রের দ্বিতীয় তলায় ঝুঁকিপূর্ণ একটি রুমে অফিসের কাজ চালিয়ে আসছেন।

এ ব্যাপারেবেগমগঞ্জ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি আকতার হোসেন জানান ভূমি অফিস স্থাপনের জন্য গত ২০১২ইং সালে আকেল মামুদ মৌজার এস,এ খতিয়ান নং১০২ এস,এ দাগনং১০১জমির পরিমান ১০ শতাংশ জমি জেলাপ্রশাসক বরাবর উলিপুর সাব রেজিস্ট্রার অফিসের দলিল সম্পাদন করিয়া দেই।এবংঅফিস ঘর স্থাপনের জন্য ইউনিয়ন ভূমি কর্মকর্তার সহায়তায় উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের নিকট কাগজপত্র জমা দেই।

অদ্যবধি পর্যন্ত অফিস ঘরে স্থাপনের জন্য কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়নি।এলাকার অনেকে জানান বর্তমান অফিসটিতে ইউনিয়ন ভূমি কর্মকর্তা আব্দুর রাজ্জাক নিয়মিত উপস্থিত থাকেননা। উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ মহল এলাকায় কোন বিষয়ে তদন্তে আসলে খবরপেয়ে তিনি উপস্থিত থাকেন। উক্ত ভূমি কর্মকর্তার বাসা কুড়িগ্রাম শহরে থাকায় নিজ বাসায় বসে অফিসের যাবতীয় কাজের সহি সম্পাদন করেন।ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে সরকারি ভাবে ল্যাপটপ প্রদান করা হলেওঅফিসে সংরক্ষিত রেকর্ড ও হোলড়িং বহি অফিসের পরিচ্ছন্ন কর্মী কাজির হোসেনের মাধ্যমে কুড়িগ্রামে বাসায় নিয়ে যান। অনেকে হয়রানি হয়ে ভূমি উন্নয়ন কর রশিদ তার বাসা থেকে সংগ্রহ করেন।

বেগমগঞ্জ ইউনিয়ন ভূমি কর্মকর্তা আবদুর রাজ্জাক মুঠোফোন জানতে চাইলে দাখিলা বহি এসপ্তাহে হাতে পাওয়ার কথা অফিস তালাবদ্ধ থাকার কথা জানতে চাইলে তিনি বৃষ্টির কারনে আসতে পারেন নাই।সহকারী ভুমি কমকর্তা রফিকুল ইসলাম তিনি মাঝে মধ্যে অফিস আসেন।অফিস পিয়ন জহুর আলী তিনি নিয়মিত ভাবে অফিসে উপস্থিত থাকেন বলে স্থানিয়রা জানিয়েছেন।আজ তালাবন্ধ থাকার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি হঠাৎ পারিবারিক সমস্যার কারনে এবং বৃষ্টি থাকার কারনে অফিসে উপস্থিত হতে পারিনি। বেগমগঞ্জ ইউপি চেয়ারম্যান বাবলু মিয়া বলেন আমার কাছে জমির মালিকরা ভুমি অফিসের খাজনা রশিদ না-পাওয়াও ইউনিন ভূমি কর্মকর্তা নিয়মিত অফিস করেন না বলে জানান।
এ ব‍্যাপারে উলিপুর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) কাজী মাহমুদুর রহমান মুঠোফোনে জানান জরুরি ভিত্তি তে দাখিলা বহিঅত্র ইউনিয়নের পৌঁছানোর জন্য নাজির সাহেবকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।দুই-একদিনের মধ্যে পৌঁছে যাবে। অফিস তালাবদ্ধ থাকার বিষয়টি জানতে চাইলে তিনি বিষয়টি দেখবেন বলে জানিয়েছেন।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর