কুড়িগ্রামে নিয়ম লঙ্ঘন করে স্কুল মাঠে বসানো হচ্ছে হাট

নয়ন দাস,কুড়িগ্রাম জেলা প্রতিনিধিঃ
  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ২২ এপ্রিল, ২০২২
  • ১২০ বার পঠিত

 

বিদ্যালয় মাঠে গরু ছাগলের হাট,অভিযোগ প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে দরপত্রের শর্ত ভঙ্গ করে কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলার ভাঙামোড় ইউনিয়নে রাবাইতারী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও রাবাইতারী এসবি বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে নিয়মিত গরু ছাগলের হাটসহ সাপ্তাহিক হাট বসানোর অভিযোগ উঠেছে ইউনিয়নের খড়িবাড়ি হাট ইজারাদারের বিরুদ্ধে। এতে গরু ছাগলের মল-মূত্রের দুর্গন্ধ আর মাঠে কর্দমাক্ততা সৃষ্টি হয়ে বিদ্যালয়ে পড়াশোনার পরিবেশ বিঘ্নিত হচ্ছে।

এ নিয়ে ১৮ এপ্রিল এলাকাবাসীর পক্ষে উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) বরাবর অভিযোগ দিয়েছেন নুর ইসলাম নামে স্থানীয় এক ব্যক্তি। প্রতি সোমবার ও শুক্রবার খড়িবাড়ি হাট বসে বলে সংশ্লিষ্ট
সূত্রে জানা গিয়েছে।

অভিযোগ উঠেছে, ইজারাদার রাবাইতারী এসবি বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের পরিবারের সদস্য ও প্রভাবশালী হওয়ায় এ নিয়ে দুই বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের কেউই প্রকাশ্যে অভিযোগ দিতে সাহস পান না।

অভিযোগকারী নুর ইসলাম জানান, ‘ওই বিদ্যালয়ে আমার দুই নাতি ও নাতনি পড়াশোনা করে। মাঠে গরু ছাগলের হাট বসানোয় বিদ্যালয়ের পরিবেশ এতটাই খারাপ হয়েছে যা না দেখলে বোঝানো মুশকিল। তা ছাড়া ইজারার শর্তেও বলা হয়েছে যে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মাঠে হাট বসানো যাবে না। কিন্তু ইজারাদার প্রধান শিক্ষকের ভাতিজা হওয়ায় তারা যোগ সাজশে স্কুল মাঠে বসাচ্ছেন। এ নিয়ে স্কুল কর্তৃপক্ষ প্রকাশ্যে অভিযোগ দেওয়ার সাহস পান না। আমি প্রতিকার চেয়ে ইউএনও বরাবর অভিযোগ দিয়েছি।’

বিদ্যালয় দুটির কয়েকজন শিক্ষক নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানায়, ইজারাদার রেদওয়ান লিংকন রাবাইতারী এসবি বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আজাউর রহমান শেখের আপন ভাতিজা। প্রধান শিক্ষকের আপন জ্যাঠাতো ভাই মালেক সরকার ওই বিদ্যালয়ের সভাপতি। মূলত প্রধান শিক্ষকের মদদেই স্কুল মাঠে হাট বসানো হচ্ছে। করোনার বাহানায় বিগত এক বছর টানা স্কুল মাঠে হাট বসানো হয়েছে। এ বছরও তারা হাটের ইজারা নিয়ে স্কুল মাঠেই গরু ছাগলের হাট বসাচ্ছে। এতে গরু ছাগলের মল মূত্রের দুর্গন্ধ সৃষ্টি হচ্ছে। আর বৃষ্টিতে কাদার সৃষ্টি হয়ে বিদ্যালয়ের পরিবেশ নষ্ট হচ্ছে। মাঠ নোংরা থাকায় ছেলে মেয়েরা স্কুলে এসে খেলাধুলাও করতে পারে না। স্কুল এলেই তাদের দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

মাঠে গরু ছাগলের হাট বসানোর বিষয়ে জানতে চাইলে রাবাইতারী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আয়শা খাতুন কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি। তিনি বলেন, ‘আগেও এমন অভিযোগ করা হয়েছিল। কিন্তু কোনো লাভ হয়নি। আমি এ ব্যাপারে মন্তব্য করে ঝামেলায় পড়তে চাই না। শুধু এটুকু বলি, গরু ছাগলের হাট বসানোর কারণে স্কুলের শিশুদের পাঠদানে সমস্যা হচ্ছে। প্রশাসনিক কাজ চালাতেও সমস্যা হচ্ছে।’

বিদ্যালয় মাঠে গরু ছাগলের হাট বসানোর কথা স্বীকার করে ইজারাদার রেদওয়ান লিংকন বলেন, ‘করোনার সময়ে হাট বাজার সম্প্রসারিত করতে বলায় স্কুল মাঠে হাট নেওয়া হয়েছে। এখন কর্তৃপক্ষ আমাদের সরিয়ে নিতে বললে আমরা সরিয়ে নেব।’

ইজারাদার নিজের ভাতিজা স্বীকার করে রাবাইতারী এসবি বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আজাউর রহমান শেখ বলেন, ‘এই হাট আগে থেকে স্কুল মাঠে হয়ে আসছে।’

সরকারি নিষেধাজ্ঞা থাকার পরও মাঠে গরু ছাগলের হাট বসানো ঠিক হচ্ছে কিনা, এমন প্রশ্নে প্রধান শিক্ষক বলেন, ‘দেখি কী করা যায়। ডিপার্টমেন্টাল নির্দেশ আছে কি না দেখব।’

গত ১৮ এপ্রিল ইউএনও অফিসে অভিযোগ জমা দিলেও বৃহস্পতিবার বিকেল পর্যন্ত অভিযোগ হাতে পাননি বলে জানিয়েছেন ইউএনও সুমন দাস। তিনি জানান, ‘আমি এখনো অভিযোগ হাতে পাইনি। হাতে পেলে দেখে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর