ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে মানুষ মারা যাবে এটা স্বাভাবিক ঘটনা হতে পারে না – গোলাম মোহাম্মদ কাদের

বিশেষ প্রতিনিধিঃ
  • আপডেট টাইম : বুধবার, ২০ সেপ্টেম্বর, ২০২৩
  • ৫৯ বার পঠিত

 

 

 

জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান ও বিরোধীদলীয় উপনেতা জনবন্ধু গোলাম মোহাম্মদ কাদের এমপি বলেছেন, লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে ডেঙ্গু আক্রান্তের সংখ্যা। একই সাথে বাড়ছে মানুষের মৃত্যুর সংখ্যা। গেলো তিন দিনে প্রতিদিন তিন হাজারের চেয়ে বেশি রোগি হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। বাসা-বাড়িতে কত সংখ্যক মানুষ ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসা নিচ্ছেন তার কোন হিসাব নেই। আজ দুপুরে জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান এর বনানীস্থ কার্যালয় মিলনায়তনে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ এর মত বিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় গোলাম মোহাম্মদ কাদের এ কথা বলেন।
জাতীয় পার্টির কো-চেয়ারম্যান ও ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা’র সভাপতিত্বে এই যোগদান অনুষ্ঠান মতবিনিময় সভা পরিচালনা করেন মহানগর দক্ষিণের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবু রহমান খশরু। নিউ সুপার মার্কেট দোকান মালিক সমিতির সভাপতি হাজী মোহাম্মদ হোসেন, বিশিষ্ট সাউন্ড সিস্টেম ব্যবসায়ী আব্দুল্লাহ আল মামুন, বলাকা শপিং কমপ্লেক্স ব্যবসায়ী সমিতির সহ সভাপতি মোঃ আব্দুর রহিম অপু, আনিছুর রহমান সহ শতাধিক ব্যবসায়ী ও সমাজ সেবক জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদের এমপির হাতে ফুল দিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে জাতীয় পার্টিতে যোগ দেন।
প্রধান অতিথির বক্তৃতায় জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদের আরো বলেন, প্রতিদিন কয়েক হাজার মানুষ নতুন করে ডেঙ্গু আক্রান্ত হবে আর এর মধ্য থেকে কিছু সংখ্যক মারা যাবে, এটাই যেনো স্বাভাবিক। ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে মানুষ মারা যাবে এটা স্বাভাভিক ঘটনা হতে পারে না। ডেঙ্গুর ভয়াবহতা নিয়ন্ত্রণে কারো যেনো দায় নেই। ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে অসংখ্য মানুষের মৃত্যু মেনে নেয়া যায় না। গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদনের উদ্ধৃতি দিয়ে তিনি বলেন, এমাসের ১৯ দিনেই ডেঙ্গু আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় ৫০ হাজার। এবছর এপর্যন্ত ডেঙ্গুতে ৮৪৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। তবে, সাধারণ মানুষের ধারণা এই মৃত্যুর সংখ্যা আরো বেশি। এপর্যন্ত ডেঙ্গুজ¦রে আক্রান্ত হয়েছে ১ লাখ ৭৩ হাজার ৭৯৫ জন। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা বলছেন, ডেঙ্গুর লার্ভা কমছে না, তাই আক্রান্তের সংখ্যাও কমছে না। ডেঙ্গু বিষয়ে সাধারণ মানুষ অধিক শোকে পাথর হয়ে গেছে। তারা আর এই বিষয়ে কথা বলতে চায় না। হাসপাতালে জায়গা দেয়ার ক্ষমতা নেই। গোলাম মোহাম্মদ কাদের আরো বলেন, আমরা ডেঙ্গু নিয়ে কথা বললে নাকি দেশের ভাবমূতি নষ্ট হচ্ছে। তাই এটাকে তারা রাষ্ট্রদ্রোহ বিবেচনা করে শাস্তিযোগ্য অপরাধ বানাতে চাচ্ছে।
এসময় জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদের আরো বলেন, রাজধানীতে ডেঙ্গু নিধনে দুই সিটি কর্পোরেশন নাটক করছে। ডেঙ্গু আক্রান্তের সংখ্যা দেখলেই বোঝা যায়, তাদের কোন সফলতা নেই। সাধারণ মানুষের অভিযোগ, রাজধানীর বাইরেও ডেঙ্গু নিধনে কার্যকর কোন উদ্যোগ নেই। আবার, ডেঙ্গু আক্রান্ত ব্যক্তিদের জন্য পর্যাপ্ত স্যালাইন পাওয়া যাচ্ছে না। প্রভাবশালী একটি গোষ্ঠী জীবন রক্ষাকারী স্যালাইন কালোবাজারে নিয়ে কয়েকগুন মুনাফা করছে, সরকারের যেনো কিছুই করার নেই। ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণ, আক্রান্ত রোগিদের সুচিকিৎসা ও স্যালাইন সরবরাহ নিশ্চিত করতে সরকারকে কার্যকর উদ্যোগ নিতে আহবান জানিয়েছেন জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদের। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, পৌরসভা বা সিটি কর্পোরেশন এর প্রধান কাজ হচ্ছে পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখা। মশা-মাছি নিয়ন্ত্রণ করতে তাদের ভূমিকাই বেশি। এখন আমদের দেশের শহরগুলো আফ্রিকার অনেক শহরের চেয়েও নোংরা। পৌরসভা ও সিটি কর্পোরেশনের কাজ এখন বড় বড় ভবন করা ও ঠিকাদারের সাথে কমিশন ম্যনেজমেন্ট করা। সেখানে এই লীগ, সেই লীগসহ বিভিন্ন লীগকে চাঁদা দিতে হচ্ছে। আবার, সিঙ্গাপুরের নাম করে মশা নিধনে একটি ভেজাল ঔষুধ আমদানী করা হয়েছে। পরে সিঙ্গাপুর বলেছে, ঐ ঔষুধ সিঙ্গাপুরের নয় বা তারা ঐ ঔষুধ বাংলাদেশে দেয়নি। মশা নিধনের চেয়ে তারা এমন কাজ-কর্মে বেশি ব্যস্ত। আসল কাজ থেকে পৌরসভা ও সিটি কর্পোরেশন অনেক দূরে চলে গেছে।
এসময় জাতীয় পার্টি মহাসচিব মুজিবুল হক চুন্নু এমপি বলেন, জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদের এমপি’র নেতৃত্বে পল্লীবন্ধুর সৈনিকেরা ঐক্যবদ্ধ আছে। কোন ষড়যন্ত্রে জাতীয় পার্টির ঐক্যে ফাটল ধরানো যাবে না। যারা জাতীয় পার্টির বিরুদ্ধে ষড়ন্ত্র করবে তাদের রাজনৈতিক ভবিষ্যত অনিশ্চিত হয়ে যাবে। তিনি বলেন, জাতীয় পার্টির অগ্রযাত্রা কেউ রোধ করতে পারবে না। দেশের মানুষ জাতীয় পার্টিকে আবারও রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় দেখতে চায়।
সভাপতির বক্তৃতায় জাতীয় পার্টি কো চেয়ারম্যান সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা এমপি বলেন, দ্রব্যমূল্য উর্দ্ধগতির কারণে মানুষের মাঝে হাহাকার উঠেছে। ক্ষত দরিদ্রের আর্তনাদ যেন শোনার কেউ নেই। তিনি বলেন, ব্যবসায়ীদের সিন্ডিকেট ভাঙতে সরকার পুরোপুরো ব্যর্থ হয়েছে। সর্বোচ্চ শাস্তির বিধান মৃত্যুদন্ড রেখে সিন্ডিকেট ভাঙতে একটি আইন করার জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানান।
জাতীয় পার্টি মহাসচিব বীর মুক্তিযোদ্ধা মুজিবুল হক চুন্নু এই মতবিনিমিয় ও যোগদান অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য ও অতিরিক্ত মহাসচিব এডভোকেট মোঃ রেজাউল ইসলাম ভূঁইয়া এবং পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য ও ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সাধারণ সম্পাদক জহিরুল আলম রুবেল। অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন চেয়ারম্যানের উপদেষ্টা অধ্যাপক ড. মোঃ গোলাম মোস্তফা, ভাইস চেয়ারম্যান তারেক মোঃ আদেল, যুগ্ম মহাসচিব গোলাম মোহাম্মদ রাজু, বেলাল হোসেন, তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার এলাহান উদ্দিন, যুগ্ম সাংগঠনিক সম্পাদক বাহাদুর ইসলাম ইমতিয়াজ, আখতার হোসেন দেওয়ান, এমএ সুবহান, শারফুদ্দিন শিপু, যুগ্ম প্রচার সম্পাদক মাসুকুর রহমান, যুগ্ম দফতর সম্পাদক মাহমুদ আলম, সমরেশ মন্ডল মানিক, যুগ্ম শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক ইব্রাহীম আজাদ, কেন্দ্রীয় সদস্য মাহবুবুর রহমান খশরু, হাজী মোঃ শাহজাহান, মহানগর দক্ষিণের নেতা হুমায়ুন কবির মজুমদার, মাসুম আহমেদ, মোঃ শাহজাহান, হুমায়ুন কবির কালা প্রমুখ নেতৃবৃন্দ।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর