প্রবাসীর জমি জালিয়াতি করে বিক্রির অভিযোগে স্বামী-স্ত্রী গ্রেফতার

কে এম শাহীন রেজা কুষ্টিয়া জেলা প্রতিনিধি।।
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ১২ ডিসেম্বর, ২০২২
  • ১১৮ বার পঠিত

 

অস্ট্রেলিয়া প্রবাসী জোবায়দা নাহার শেখ ও তার ছোট বোন জামিলা নাহার শেখ প্রায় ১৫ বছর পরে কুষ্টিয়ার ইবি থানাধীন হরিনারায়নপুর বেড়বাড়াদি গ্রামের নিজ বাড়ীতে গেলে স্থানীয় ভূমিদস্যু ও প্রভাবশালী জালিয়াতি চক্রের সদস্যরা তাদেরকে বাধা প্রদান করে তাড়িয়ে দেয়। বিস্মিত হয়ে ছুটে যান ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় থানায়। কর্তব্যরত ওসি একটি ভিডিও ক্লিপ দেখিয়ে জানান যে, আপনারাই তো জমি বিক্রি করে দিয়েছেন। উপায়ান্তর না পেয়ে দুই বোন থানায় একটি জালিয়াতি ও ভয়ভীতি প্রদর্শনের মামলা করেন।

পরবর্তীতে জানতে পারেন যে, তাদের সম্পত্তি রক্ষনাবেক্ষণের দায়িত্বে থাকা দীর্ঘ ২৩ বছরের বিশ্বস্ত কর্মচারী এস এম জিয়াউর রহমান(৪১) ও তার প্রথম স্ত্রী সুমনা(৩২) কুষ্টিয়ার সদর উপজেলার দুর্বাচরা গ্রামের মৃত শাহ উজির উদ্দিনের ছেলে তহশিলদার শাহ মেসবাহুর রহমান(৫৫) (পূর্বে হরিনারায়ণপুর ইউনিয়ন ভূমি অফিসের তহশিলদার ছিলেন, বর্তমানে মনোহরদিয়া ইউনিয়ন ভূমি অফিসে কর্মরত)। একই উপজেলার রাহিনী গ্রামের আব্দুস সাত্তারের ছেলে শামসুল ইসলাম(৩০), আক্তার খায়েরের ছেলে সাদ্দাম খাঁ(৩০) এবং দুর্বাচরা গ্রামের শাহ খলিলুর রহমানের ছেলে শাহ ইউসুফ হোসাইন(৩২) এর যোগ সাজসে তাদের দু’ বোনের সম্পত্তি ১১/০৩/২০২২ তারিখে রেজিস্ট্রি করে নিয়েছে। এবং তহশিলদার মেসবাহুর রহমান নাম পত্তনের মাধ্যমে কুষ্টিয়া সদর রেজিষ্ট্রি অফিসের অসাধু কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের কারসাজিতে তাদের পৈত্রিক লালন পেট্রোল পাম্প রাজধানী পরিবহনের মালিক নুরুজ্জামান এর কাছে বিক্রি করেন। এক পর্যায়ে ভূক্তভোগী জোবায়দা নাহার শেখ কুষ্টিয়া সদর থানায় মামলা নং ২২, তারিখ-০৯/১২/২০২২খ্রিঃ ধারা-৪০৮/৪০৬/৪১৯/৪৬৭/৪৬৮/৪৭১/৪২০/৫০৬(২)/৩৪ পেনাল কোড দায়ের করেন। মামলাটি পিবিআই কুষ্টিয়া অধিগ্রহণ পূর্বক তদন্ত শুরু করে। পিবিআই পুলিশ পরিদর্শক মোঃ রবিউল আলমের অনুসন্ধানে কেঁচো খুড়তে বেরিয়ে আসে সাপ।

মাত্র একটি নয় পরপর তিনটি জাল দলিল সম্পাদনের মাধ্যমে তাদের উভয়ের প্রায় দশ কোটি টাকার সম্পদ ভূমিদস্যুরা স্থানীয় তহশীল অফিসের শাহ মেসবাহুর রহমান ও সাবরেজিস্ট্রার এর কার্যালয়ের কতিপয় অসাধু কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের প্রত্যক্ষ যোগসাজশে আত্মসাৎপুর্বক দখল করে নিয়েছে। যার মধ্যে লালন ফিলিং স্টেশন’ নামে কুষ্টিয়া-ঝিনাইদহ আঞ্চলিক মহাসড়কের বিত্তিপাড়া নামক স্থানে একটি পেট্রোল পাম্পও রয়েছে। কথিত দলিলদাতা হিসাবে দুই বোনের স্বাক্ষর ও টিপসহি জাল। তদন্তের আরও গভীরে গিয়ে পিবিআই কুষ্টিয়া উদঘাটন করে যে, উক্ত দুই বোনের সম্পত্তি রক্ষনাবেক্ষণের দায়িত্বে থাকা দীর্ঘ ২৩ বছরের বিশ্বস্ত কর্মচারী এসএম জিয়াউর রহমান (৪১) ও তার প্রথম স্ত্রী সুমনা(৩২) কে বিক্রেতা সাজিয়ে গুলশানের একটি বাড়ীতে কুষ্টিয়া সাব-রেজিস্ট্রি অফিস থেকে কমিশন নিয়ে গিয়ে জমি রেজিস্ট্রি করা হয়েছে। জালিয়াত চক্রের উপস্থিতিতে একজনকে দিয়েই দুই বোনের স্বাক্ষর ও টিপসহি প্রদান করায়। সৃজিত দলিল ব্যবহার করে জালিয়াত চক্র জমির নামজারী সম্পন্ন করে জালিয়াতি চক্রের সদস্যরা কয়েকগুন উচ্চ মূল্যে রাজধানী পরিবহনের মালিক নুরুজ্জামানের নিকট পেট্রোল পাম্পসহ জমি বিক্রি করে বিপুল অংকের টাকা আত্মসাৎ করে।

পিবিআই কুষ্টিয়ার পুলিশ সুপার মোঃ শহীদ আবু সরোয়ারের সার্বিক তত্বাবধায়নে পিবিআই কুষ্টিয়ার একটি চৌকস দল পুলিশ পরিদর্শক মোঃ রবিউল আলমের নেতৃত্বে অভিযান চালিয়ে ঢাকা সবুজবাগের একটি বাসা থেকে গত ০৯/১২/২০২২ ইং তারিখ দিবাগত রাতে আসামী এসএম জিয়াউর রহমান ও তার স্ত্রী সুমনাকে গ্রেফতার করে। গ্রেফতারের সময় প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা উভয়ে ঘটনার সাথে সম্পৃক্ততার বিষয়টি স্বীকার করেন বলে জানিয়েছেন পিবিআই। সে সময়ে তাদের বাসা থেকে ঘটনায় ব্যবহৃত পোশাকাদি, মোবাইল ফোন, দলিলে ব্যবহৃত ছবি ইত্যাদি জব্দ করা হয়। গত ১১/১২/২০২২ তারিখে গ্রেফতারকৃত দম্পতিকে বিজ্ঞ আদালতে প্রেরণ করা হলে আসামী সুমনা ফৌজদারী কার্যবিধি ১৬৪ ধারা মোতাবেক স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করে। ঘটনার সাথে জড়িত অন্যান্য আসামীদের গ্রেফতার ও পরবর্তী আইনী কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন রয়েছে বলে জানিয়েছেন।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর