বন্যায় কলার ভেলায় পারাপার হচ্ছেন গ্রামের মানুষ

নয়ন দাস,কুড়িগ্রাম জেলা প্রতিনিধিঃ
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ১৯ জুন, ২০২২
  • ১৪১ বার পঠিত
 কুড়িগ্রামের রৌমারী উপজেলার সদর ইউনিয়নের ইজলামারী সড়ক উপচে নতুন করে ১১টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। এতে উপজেলার বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি হয়েছে। ফলে উপজেলার ৬টি ইউনিয়নের ৯১টি গ্রামের প্রায় ১ লাখ ৭ হাজার মানুষ পানিবন্দী। সরজমিনে গিয়ে জানা যায়, পানি বাড়ায় হলহলী নদীর ভাঙনে বিলীন হয়েছে ১১টি বাড়ি। পানিতে তলিয়ে গেছে প্রায় দুই শতাধিক বাড়ি। এদের মধ্যে অনেকেই উঁচু স্থানে তাদের আত্মীয়স্বজনের বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছেন। কেউ কেউ চৌকি উঁচু করে বাড়িতেই আছেন। যে হারে পানি বাড়ছে তাতে করে বড় ধরনের বন্যার আশঙ্কা করছেন পানিবন্দী এলাকার মানুষেরা।
কুড়িগ্রাম পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্রে জানা যায়, গত ২৪ ঘণ্টায় কুড়িগ্রামের চিলমারী পয়েন্টে ব্রহ্মপুত্র নদের পানি বিপদ সীমার ৩৫ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়,উপজেলার বেশির ভাগ এলাকায় এখন শুধু পানি আর পানি।
বসতভিটা তলিয়ে যাওয়ায় উঁচু স্থানে চলে গেছেন অনেক পরিবার। কেউ আবার কষ্ট মেনে নিয়ে ঘরের চৌকি উঁচু করে আঁকড়ে আছেন নিজের বসতভিটা। আবার পানি বাড়ায় সবকিছু হারিয়ে অন্যের জমিতে ঘরের চাল দুটো খাঁড়া করে তার মধ্যে বসবাস করছেন বসতভিটা হারানো পরিবারগুলো। চরশৌলমারী ইউনিয়নের পূর্ব কাজাইকাটা পাড়া গ্রামের মুক্তার ফকির (৭০) বলেন, ‘বন্যার পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় হলহলী নদীর ভাঙনে আমার বসতভিটা বিলীন হয়ে গেছে।
বৃষ্টিতে ঘরের জিনিসপত্র সব নষ্ট হয়ে গেছে। অন্যের উঁচু জমিতে কোনো রকমে আশ্রয় নিয়ে অনেক কষ্টে আছি। এখন পর্যন্ত কোনো জন প্রতিনিধি আমাদের খোঁজ নেননি।’ একই কথা বলেন, বসত ভিটা হারানো ওই গ্রামের সূর্য মিয়া (৬৬), নবাব আলী (৬২), ফুল চান (৪০), আব্দুল শেখ (৩৬), শাহাজামাল (৪০), সোহেল পাইক (৩৫), ছাবেদ আলী (৫৫) শুকুর আলী (৫৪)। বন্দবেড় ইউনিয়নের পালেরচর গ্রামের আব্দুল কাইয়ুম বলেন, ‘বন্যার পানিতে ঘরদোর সব তলিয়ে গেছে। পরিবারের লোকজন নিয়ে খুব কষ্টে আছি।
ঘরের জিনিস পত্র হারিয়ে যাওয়ার ভয়ে পানির ওপরে বসবাস করছি। কি করব? ভোটের সময় তো অনেক জন দরদি পাওয়া যায়, বিপদের সময় কেউ খোঁজ নেন না। পানির বাড়তে থাকলে বড় ধরনের বন্যা হতে পারে। তখন আর শত কষ্টেও বাড়িতে থাকা হবে না, অন্য কোথাও আশ্রয় নিতে হবে।’ বন্দবেড় ইউপি চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব আব্দুল কাদের সরকার বলেন, ‘প্রায় শতাধিক বাড়িতে হাঁটু থেকে কোমর পানি। পানিবন্দী হয়েছে প্রায় ২৫টি গ্রাম। উপজেলা প্রশাসনের কাছে প্রতিবেদন দেওয়া হয়েছে। নদীভাঙা পরিবার গুলির জন্য ত্রাণ সামগ্রীর ৩১ প্যাকেট পেয়েছি। সেগুলো বিতরণ করা হয়েছে।
শুনেছি বানভাসিদের জন্য ৩ মেট্রিক টন জিআর চাল বরাদ্দ হয়েছে। এখনো কোনো চিঠি পাইনি।’ রৌমারী সদর ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রাজ্জাক বলেন, ‘আমার ইউনিয়নে প্রথম দফার বন্যার পানি না শুকাতেই আবারও পাহাড়ি ঢলে ৩০টি গ্রামের মানুষ পানিবন্দী হয়ে পরেছে। রাস্তা ঘাট তলিয়ে গেছে। বাড়িতে পানি উঠেছে প্রায় ২৫টি বাড়িতে। পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় বড় ধরনের বন্যার আশঙ্কা করছি। যেসব বাড়িতে পানি উঠেছে তাদের জন্য শুকনা খাবার চিড়া, মুড়ি, চিনি, লবণ বাড়িতে পৌঁছে দেওয়া হয়েছে।’ রৌমারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশরাফুল আলম রাসেল বলেন, ‘ভারী বর্ষণে ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে উপজেলার ৬টি ইউনিয়নের বেশির ভাগ এলাকা প্লাবিত হয়েছে। পানিবন্দী হয়েছে প্রায় ১ লাখ ৭ হাজার মানুষ। উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সর্বক্ষণ মনিটরিং করা হচ্ছে। বন্যা নিয়ন্ত্রণ সমন্বয় কক্ষ চালু করা হয়েছে। যেসব বাড়ি তলিয়ে গেছে তাদের শুকনা খাবার বিতরণ করা হচ্ছে। ত্রাণ বিতরণ অব্যাহত থাকবে।’

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর

 

 

 

বগুড়ায় ট্রেন চালকের দক্ষতায় বড় দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা পেয়েছে দোলন চাঁপা আন্তঃনগর ট্রেন। ওই ঘটনায় দু’জন আহত হলেও কয়েক’শ মানুষ প্রাণে বেঁচে গেছেন। রেল লাইনের উপর অবৈধ দোকানগুলো ওই দুর্ঘটনার কারণ বলে জানিয়েছেন রেল কর্তৃপক্ষ ও স্থানীয় লোকজন।

বগুড়া রেলওয়ে স্টেশন থেকে মাত্র ত্রিশ গজ দূরেই এক যুগেরও বেশি সময় ধরে (বগুড়া রেলস্টেশন থেকে একনম্বর ঘুমটি পর্যন্ত ) প্রায় তিন শতাধিক অবৈধ কাপড়ের দোকান রেল লাইনের উপর রয়েছে। বগুড়ার পুরাতন কাপড়ের বড় মার্কেট এটি। পরিচিত ‘হঠাৎ মার্কেট’ হিসেবে। প্রতিদিন সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত কয়েক হাজার ক্রেতার সমাগম ঘটে। বছরে একবার করে রেল থেকে ওইসব দোকান উচ্ছেদ করলেও দুই তিনদিন পরে আবারও দোকান আগের মতো বসে। মূল রেল লাইনের উপর তাঁবু টানিয়ে এসব দোকান বসানো হয়েছে। ট্রেন চলে আসলেই দ্রুত তাবুগুলো সরে ফেলা হয়। কয়েক বছরে প্রায় ৭-৮ জন ক্রেতা এবং বিক্রেতার প্রাণহানি ঘটেছে এই হঠাৎ মার্কেটে।

বগুড়ার রেলস্টেশনের স্টেশন মাষ্টার আবুল কাশেম জানান, দুপুর ১১টায় দোলন চাঁটা আন্তঃনগর ট্রেন বোনারপাড়া থেকে বগুড়ায় আসছিল। অপরদিকে আরেকটি আন্তঃনগর ট্রেন লালমনি এক্সপ্রেক্স ঢাকা থেকে বগুড়া স্টেশনে আসতে থাকে। সিগন্যাল এবং পয়েন্ট ঠিক করে দোলনচাঁপা ট্রেনটির জন্য দুইনম্বর লুপ লাইনে এবং লালমনি এক্সপ্রেক্সকে একনম্বর লাইনে আসার নির্দেশনা ঠিক করা হয়। দোলনচাঁপা ট্রেনটি হুইসেল দিতে দিতে দুই নম্বর লুপ লাইন দিয়ে স্টেশনে আসতে থাকে।

‘হঠাৎ মার্কেট’র দোকানদারদের জানা ছিল ওই ট্রেনটি একনম্বর লাইন দিয়ে আসবে। তাই তারা দোকানের তাবু সরাইনি। কিন্তু যখন ট্রেনটি দুইনম্বর লুপ লাইন দিয়ে হুইসেল দিতে দিতে আসতে থাকে তখন দোকানদার এবং ক্রেতারা চিৎকার করে এদিক ওদিক দৌড়ে পালাতে থাকে। ট্রেন চালক দ্রুততার সাথে ট্রেনটি ব্রেক করায় দোকানের মালামাল নষ্ট হলেও কোন প্রাণ হানি ঘটেনি। নইলে অনেক প্রাণহানির ঘটনা ঘটতে পারতো।

তিনি আরও জানান, গত ১৯ নভেম্বর লালমনিহাট থেকে বিভাগীয় ভূ-সম্পদ কর্মকর্তাসহ উর্দ্ধতন কর্মকর্তারা স্টেশনের পাশের একটি মার্কেটের প্রায় দুইশতাধিক অবৈধ স্থাপনা গুড়িয়ে দেয়ার সময় ‘হঠাৎ মার্কেট’দুইদিন বন্ধ ছিল। পরে ২২ নভেম্বর আবারও ‘হঠাৎ মার্কেট’র দোকানদাররা তাদের দোকান বসায়। এ বিষয়ে উর্দ্ধতন কর্মকর্তাদের কাছে রেল স্টেশন সীমানার মধ্যে এবং লাইনের উপর অবৈধ দোকান উচ্ছেদের জন্য ২৩ নভেম্বর চিঠি দেয়া হয়।

স্টেশন মাষ্টার আরও জানান, রেল লাইন থেকে দুই পাশের ১০ ফুট করে জায়গা ১৪৪ ধারা সবসময়ের জন্য জারী থাকরেও এসব কেউ মানছেনা। স্টেশন মাষ্টার অভিযোগ করে বলেন, সিগন্যাল এবং পয়েন্টের তারের উপর অবৈধ দোকান বসার কারনে অনেক সময় সঠিকভাবে সিগন্যাল ও পয়েন্ট করা সম্ভব হয়না। অথচ, ট্রেনের আসা যাওয়ার মূল বিষয়টি হলো সিগন্যাল এবং পয়েন্ট।

বগুড়া রেল স্টেশনের প্রধান বুকিং সহকারী শাহীন আলম জানান, রেল লাইনের নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা সহকারী ইন্সপেক্টর রায়হান কবীরের কারণেই রেল লাইনের উপর অবৈধ হঠাৎ মার্কেট গড়ে উঠেছে। লাইনের উপর নিরাপত্তার দায়িত্ব তার থাকলেও প্রতিদিন লাইনের উপর মার্কেট দেখার পরেও উনি কোনো ব্যবস্থা না নিয়ে দোকানদারদের সাথে সখ্যতা গড়ে তুলেছেন।

তবে রায়হান কবীর তার বিরুদ্ধে অভিযোগ অস্বীকার করেন। তাকে প্রশ্ন করা হয়, লাইনের নিরাপত্তার দায়িত্ব আপনার থাকলেও কেন ওইসব দোকান দেখেও কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করেননি। তিনি জানান, বিষয়গুলো উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ জানেন।

বগুড়া জিআরপি ফাঁড়ির দায়িত্বপ্রাপ্ত ইন্সপেক্টর কায়কোবাদ জানান, ঘটনাটি জানার পরে সেখানে আমরা দ্রুত যাই। কিন্তু কোনো আহত কিংবা নিহত ব্যক্তির খোঁজ পাইনি। তবে আশেপাশের লোকজন জানিয়েছেন, চার-পাঁচজন ক্রেতা আহত হয়েছেন।
বগুড়া ফায়ার স্টেশনের সিনিয়ন স্টেশন মাষ্টার বজলুর রশিদ জানান, দুইজন আহত হয়েছেন। তারা হলেন, গাবতলী উপজেলার রুমি খাতুন (৩০) এবং দুপচাঁচিয়া উপজেলার মানিক (৫৫)। তাদের শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। তবে আরও কয়েকজনের কথা শুনলেও তাদের খুঁজে পাওয়া যায়নি।

রেল লাইনের পাশের স্থানীয় ব্যবসায়ী নাম না প্রকাশে ইচ্ছুক কয়েকজন জানান, গত ৫/৬ বছরে প্রায় ৭-৮জন ট্রেনে কেটে হঠাৎ মার্কেটে মারা গেছে। এদের মধ্যে ক্রেতা এবং দোকানদারও ছিল। বুধবার যদি ট্রেনের চালক দ্রুত ব্রেক না করতো তাহলে কয়েক’শ লোকের প্রাণহানি ঘটতো।

কয়েক’শ মানুষ প্রাণে বেঁচে গেছে ট্রেন চালকের দক্ষতায়