বিএমএসএফ’র হালহকিকত?

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • আপডেট টাইম : বুধবার, ৯ নভেম্বর, ২০২২
  • ১১৯ বার পঠিত

 

বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরাম (বিএমএসএফ) সাংবাদিকদের একটি জাতীয় নেটওয়ার্ক তৈরী হয়েছে, জাতীয় প্রেসক্লাবে ৩০ মার্চ/২০২২ খ্রী নবগঠিত পরিচিতি সভায় সভাপতি সোহেল আহমেদ সাধারণ সম্পাদক শিবলী সাদিক খানের নেতৃত্বে ১২১ সদস্যের কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটি ঘোষণা করা হয়।

গত ৭ মাসে সংগঠনের উন্নয়ন অগ্রযাত্রায় সিলেট সুনামগঞ্জ বন্যার্থদের মাঝে ৮ লক্ষ টাকার ত্রাণ বিতরণ করা হয়েছে। নরসিংদীর এক সাংবাদিকের মৃত্যুতে আর্থিক সহায়তা ও ছেলেকে চাকুরীর ব্যবস্থা করে দেওয়া হয়েছে। ব্যাংক একাউন্ট হয়েছে। পুরাতন অফিসের দায়দেনা পরিশোধ করে নতুন অফিসের ব্যবস্থা করে দেওয়া হয়েছে। সেল্টার হোম করে দেওয়া হয়েছে। নানামুখী ভাল কাজের পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করে যাচ্ছে।

এর আগে নাম সর্বস্ব চাদাবাজিতে লিপ্ত আহমেদ আবু জাফরের কারণে সংগঠনের ক্রান্তিকালে অস্তিত্ব বিলুপ্ত প্রায় অবস্থা থেকে জাফরকে শুধরে যাওয়ার একটি সুযোগ সৃষ্টি করে দিতে অসাংগঠনিক অগঠনতান্ত্রিক কর্মকান্ড থেকে বিরত থাকার শর্তে বিএমএসএফকে সাংবাদিক সংগঠনে পরিণত করতে গঠনতন্ত্র প্রণয়ন করা হয়, নেতৃবৃন্দের বরাত দিয়ে জানা যায় তাদের অর্থায়নে তাকে দিয়ে লোগো ট্রেডমার্ক, সংগঠনের নাম কপিরাইট করানো হয়। সাংবাদিক সংগঠনকে সহায়তা করতে সূত্রাপুর সাব রেজিস্ট্রি অফিসে ট্রাস্টি দলিল করার পরামর্শসহ তার নিজের দৈন্যদশা থেকে মুক্তি পেতে দান অনুদানের ব্যবস্থা করা হয়। কিন্তু তিনি সরকারের সাথে প্রতারণা করে মিথ্যা তথ্যের সন্বনয়ে সাংবাদিকদের সাথেও প্রতারণার কৌশল বাস্তবায়ন করতে পারিবারিক ট্রাস্টি দলিল রেজিট্রি করেন যার নং ০৬/২০২২। এই দলিলকে আহমেদ আবু জাফর বলছেন সাংবাদিকদের গঠনতন্ত্র এটাই, ঐ দলিলে ভূয়া অফিসের ঠিকানা ব্যবহার করা হয়েছে, সদস্যদের নিকট থেকে দলিলে উল্লেখিত টাকা নিয়ে ব্যাংক একাউন্ট না করে অর্ধশত সাংবাদিকদের অর্থ আত্মসাত করেছে বলে সংগঠনের মাঝে ব্যপক আলোচনা সমালোচনা শুরু হয়েছে। আইন প্রয়োগকারী সংস্থা কর্তৃক প্রতারণার রহস্য উদঘাটনের দাবী উঠেছে।

জানা গেছে কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটিকে পাশ কাটিয়ে তিনি একাই কমিটি গঠন, সদস্য ফি আদায়, সভা আহবান করে সংগঠনে চরম বিশৃংখলা সৃষ্টি করে চলেছেন। কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সভাপতি সম্পাদক অনেক চেষ্টা করেও এ সংগঠনেন প্রতিষ্ঠাতা আবু জাফরের দুর্নীতি অনিয়ম কার্যক্রমসহ লক্ষ লক্ষ টাকার বিকাশবাজী কোন ভাবেই থামাতে পারছেন না। ফলে সূত্রটি জানিয়েছেন ফেসবুক ম্যসেঞ্জার গ্রুপে এসকল বিষয়ে ব্যপক লেখালেখি হচ্ছে এমনটি ইতিপূর্বে একটি জরুরী সভায় নেতৃবৃন্দের বক্তব্যে তা প্রকাশ পেয়েছে। এর সুষ্ঠু সমাধানের জন্য সভাপতি সম্পাদক আগমী ২৬ নভেম্বর শনিবার সাধারণ সভার আহবান করেছেন, ঐ দিনই এই সংগঠনের আরো বিস্তারিত তথ্য জানা যাবে সে পর্যন্ত আমাদের সাথে থাকুন।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর