মেহেরপুরের গাংনীতে স্ত্রীর স্বীকৃতি চেয়ে প্রেমিক স্বামীর বাড়িতে অনশনতে আমরণ

নিজস্ব প্রতিবেদক:
  • আপডেট টাইম : বুধবার, ১৯ আগস্ট, ২০২০
  • ৮১২ বার পঠিত

মেহেরপুরের গাংনীতে স্ত্রীর স্বীকৃতি চেয়ে প্রেমিক স্বামীর বাড়িতে আমরণ অনশন করছে বিলকিস নামের একজন মহিলা। আজ বুধবার সকাল ১০ টা থেকে অনশন শুরু করেছেন তিনি। ঘটনাকে কেন্দ্র করে ছেলে সাব্বির হোসেনের বাড়ির সামনে হাজার হাজার উৎসুক জনতা (নারী পুরুষ) ভীড় জমিয়েছে

ঘটনা সূত্রে জানা গেছে, গাংনী উপজেলার সীমান্তবর্তী খাসমহল গ্রামের মৃত হাজী সাইদুর রহমানের মেয়ে বিলকিস খাতুন (২১) ও একই উপজেলার বামন্দী পশু হাট পাড়া সংলগ্ন নওদা ছাতিয়ান গ্রামের সাবেক মেম্বর শওকত আলীর ছেলে সাব্বির হোসেন (২৪) এর মধ্যে কুষ্টিয়া শহরে পড়াশোনার সুবাদে প্রেমজ সম্পর্ক গড়ে উঠে। সম্পর্ক ঘনিভূত হলে দুজনের সম্মতিতে কুষ্টিয়া জজ কোর্টে এ্যাফিডেভিট করে নিকাহ নামা সম্পাদন করে ২ লাখ টাকা দেনমোহরে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়। কাবিন নামা অনুযায়ী ০৭-০৮-২০১৯ ইং তারিখে তাদের বিয়ে হয়। বিয়ের ৩ মাস সংসার ও মেলামেশা করলেও পরে সাব্বির হোসেন আর কোন খোজঁ খবর নেয়না বা স্ত্রীর স্বীকৃতি বা মযার্দা দিতে অস্বীকার করে।
বিলকিস খাতুন জানান, আমরা দু’জন কুষ্টিয়াতে পড়াশোনা করতাম। আমি নার্সিং ও সাব্বির হোসেন পলিটেকনিকে লেখাপড়া চলাকালীন অবস্থায় দুজনের মধ্যে প্রেমজ সম্পর্ক গড়ে উঠে। সাব্বিরের গ্রামে আমার আত্মীয় থাকার সুবাদে আমাদের মধ্যে সম্পর্ক পাকাপাকি হলে বিয়ে বন্ধনে আবদ্ধ হই। সে আমার বাসাতে রাত্রিযাপন করেছে।গত ৮ মাস যাবত সে আমার কোন খোঁজ খবর নেয়না। আমি গোপনে জানতে পেরেছি যে, সাব্বির আমাকে ছেড়ে বিয়ে করার জন্য মেয়ে দেখছে। উপায়ন্তর না পেয়ে আমি স্ত্রীর দাবিতে সাব্বিরের বাড়িতে আমরণ অনশন করবো।আমাকে হয় মেনে নেবে নয়তবা আমি মৃত্যুবরণ করবো। বিলকিসের খালাতো বোন মালতি খাতুন জানান, সাব্বির হোসেন আমার বাড়িতে বিলকিসের সাথে রাতযাপন করেছে। এখন সে সব অস্বীকার করছে।এছাড়া বিলকিস আরও জানায়, আমাকে সাব্বির এর লোকজন ভয়ভীতি দেখাচ্ছে। আমার ক্ষতি করার হুমকি দিচ্ছে।

এ ব্যাপারে সাব্বির হোসেন ও তার বাবা শওকত মেম্বরের সাথে কথা বলতে চাইলে তাদের বাড়িতে পাওয়া যায়নি এমনকি যোগাযোগ করাও সম্ভব হয়নি।
স্থানীয়রা জানান, আমরা সকাল থেকে দেখছি, খাসমহলের একটি মেয়ে সাবেক মেম্বর শওকত আলীর বাড়ির সামনে স্ত্রীর স্বীকৃতি পেতে সকাল থেকে অবস্থান করছে। গ্রামের হাজার হাজার মানুষ বিষয়টি জানতে ভীড় জমাচ্ছে।

এ ব্যাপারে স্থানীয় লিটন মেম্বার জানান, ছেলের পরিবারের সাথে আমার কথা হয়েছে আগামী ২২ই আগস্ট শনিবার সকাল ১০ টার সময় ইউনিয়ন পরিষদে উভয় পক্ষকে নিয়ে বসতে রাজি হয়েছে ছেলের পরিবার, মেম্বারের আশ্বাসে মোছা বিলকিস খাতুন তার অনশন ভঙ্গ করে বাড়িতে রওনা হয়েছে।

গাংনী থানার ওসি তদন্ত সাজেদুল ইসলাম জানান, ঘটনাটি আমি শুনেছি। ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। ভিকটিমের পরিবার অভিযোগ দিলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর