কিশোরগঞ্জে স্ত্রী হত্যার দায়ে স্বামীর মৃত্যুদণ্ড

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ১৯ জানুয়ারী, ২০২৩
  • ২১১ বার পঠিত

কিশোরগঞ্জে যৌতুকের জন্য স্ত্রী হত্যার দায়ে স্বামীকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত,সেই সঙ্গে তাকে এক লাখ টাকা জরিমানাও। বৃহস্পতিবার কিশোরগঞ্জের এক নম্বর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের জেলা ও দায়রা জজ মুহাম্মদ হাবিবুল্লাহ আসামির উপস্থিতিতে এ রায় দেন।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত ব্যক্তির নাম দেলোয়ার হোসেন মাহতাব (৪২)। তিনি জেলার করিমগঞ্জের কাদিরজঙ্গল ইউনিয়নের উত্তর চানপুর গ্রামের মৃত ইমাম উদ্দিনের ছেলে। ভিকটিমের নাম প্রজ্ঞা মোস্তফা (২৬)। তিনি ইটনার লাইমপাশা এলাকার আহসান মোস্তফা র (৬০) মেয়ে। ওই দম্পতির প্রশংসা মনি তিলকা নামে চার বছরের একটি কন্যা সন্তান রয়েছে।

মামলার বিবরণে জানা যায়, বাদী আহসান মোস্তফার মেয়ে প্রজ্ঞা মোস্তফা কিশোরগঞ্জ সরকারি মহিলা কলেজে অনার্স ফাইনাল বর্ষের ছাত্রী থাকা অবস্থায় ২০১৭ সালে মাহতাবের সঙ্গে বিয়ে হয়। বিয়ের তিনমাস পর মাহতাব বিদেশে গিয়ে দুইমাস পর খালি হাতে ফিরে আসেন। হত্যাকাণ্ডের একমাস আগে মাহতাব ব্যবসার জন্য স্ত্রীকে তার বাবার কাছ থেকে ২ লাখ টাকা যৌতুক এনে দেওয়ার জন্য চাপ দেন।

 

 

প্রজ্ঞা এতে অস্বীকৃতি জানালে তার ওপর শারীরিক নির্যাতন নেমে আসে। ২০১৯ সালের ২১ মার্চ সকাল সাড়ে ১০ টার দিকে আসামি আবারও প্রজ্ঞার কাছে ২ লাখ টাকা দাবি করলে তিনি অস্বীকৃতি জানান। তখন মাহতাব গরু জবাই করার লম্বা ছোরা দিয়ে প্রজ্ঞার মাথাসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে উপর্যুপরি কুপিয়ে মারাত্মক জখম করেন।

 

এতে ঘটনাস্থলেই প্রজ্ঞার মৃত্যু হয়। এদিনই নিহতের বাবা আহসান মোস্তফা বাদী হয়ে করিমগঞ্জ থানায় নারী ও শিশু নির্যতন দমন আইনে মাহতাবকে একমাত্র আসামি করে মামলা করেন। পরে এদিনই মাহতাবকে তার বড়ভাই জসিম উদ্দিনের বাড়ি থেকে পুলিশ গ্রেপ্তার করে এবং হত্যার জন্য ব্যবহৃত ছোরাটি উদ্ধার করে।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা করিমগঞ্জ থানার এসআই আব্দুল্লাহ আল মাসুদ ওই বছরই ২৯ জুলাই মাহতাবকে দোষী সাব্যস্ত করে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। বৃহস্পতিবার মামলার রায় পেয়ে বাদী সন্তোষ প্রকাশ করেছেন।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর