কুষ্টিয়া আপন ট্রেডার্সের মালিক মামলাবাজ আলাউদ্দিনের প্রতারণার শিকার তিন ব্যবসায়ী

কে এম শাহীন রেজা, কুষ্টিয়া জেলা প্রতিনিধি
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ২৪ জুন, ২০২১
  • ৬৭৪ বার পঠিত

কুষ্টিয়ার মেসার্স আপন ট্রেডার্সের স্বত্বাধিকারী মামলবাজ ও প্রতারক আলাউদ্দিনের প্রতারণার শিকার হয়েছেন কুষ্টিয়া সহ শরীয়তপুরের দুই স্বনামধন্য বিশিষ্ট ব্যবসায়ী। আলাউদ্দিন ঠিকাদারী কাজে ব্যবহৃত মালামাল সরবরাহের প্রতিশ্রুতি দিয়ে সময় মত মালামাল সরবরাহ না করায় ব্যবসায়ীদের ব্যাপক ক্ষতির মুখে ফেলে উল্টো পাওনার টাকার অতিরিক্ত টাকার অংক চেকে উল্লেখ পূর্বক ব্যবসায়ীদের হয়রানি করছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।
কুষ্টিয়ার আপন টেডার্স এর মালিক তিন ব্যবসায়ির ৩ টি চেক ডিজঅনার করে কুষ্টিয়ার ভাই ভাই ট্রেডার্সের স্বত্বাধিকারী শফিকুল ইসলাম, শরীরতপুরের মেসার্স শামীম ট্রেডার্স ও শরীয়তপুরের তন্ময় এন্টারপ্রাইজের নামে কুষ্টিয়া সিনিয়র চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে এন আই এক্টের ১৩৮ ধারায় ভিন্ন ভিন্ন তারিখে পৃথক ভাবে ভাই ভাই ট্রেডার্সের নামে সি আর ৬৮১/২০২০, শরীয়তপুরের শামীম ট্রেডার্সের নামে সি আর ১০৭/২০২০ নম্বরে তিনজনের ৩৯ লক্ষ টাকার মামলা করেন। উল্লেখ্য শরীয়তপুরের শামীম ট্রেডার্সের মালিক উক্ত জেলার সেরা করদাতা হিসাবে বেশ কয়েকবার নির্বাচিত হয়েছেন বলে জানা গেছে।
পরবর্তীতে মামলা উত্তোলন ও মিমাংসা করার জন্য শরীয়তপুরের অন্যতম ব্যবসায়ী খান এন্টারপ্রাইজের মালিক সোহেল খান বিবাদী তিন জনের পক্ষ হয়ে মধ্যস্থততাকারী হিসাবে গত ১৭/০৮/২০২০ তারিখে বাদী আলাউদ্দিনের বাড়িতে ভিডিও, ছবি ও ব্যবসায়িক প্যাডে লিখিত দিয়ে সাক্ষী সোহেল রানা, আলাউদ্দিনের ছেলে আল মোহাইমেন ও আলমগীরের উপস্থিতিতে বিষয়টি মিমাংসা হয়। উক্ত আলোচনায় স্বাক্ষীগণের উপস্থিতিতে ৩৯ লক্ষ টাকার বিপরীতে নগদ ২০ লক্ষ টাকা প্রদান করেন ও অবশিষ্ট ১৯ লক্ষ টাকা পরে প্রদান করার জন্য একটি চেক প্রদান করা হবে মর্মে উভয় পক্ষের মধ্যে সিদ্ধান্ত হয়। মিমাংসার উক্ত সিদ্ধান্ত অনুযায়ী বিবাদীদের নিকট থেকে নগদ ২০ লক্ষ টাকা ও ১৯ লক্ষ টাকার একটি চেক গ্রহণ করে। উক্ত মিমাংসার সিদ্ধান্ত মেনে নগদ টাকা গ্রহণ ও আপন ট্রেডার্সের প্যডে আলাউদ্দিনের দেয়া মুচলেকার একটি ভিডিও ক্লিপ ও তার ব্যবসায়িক প্যাডে মুচলেকার কপি ইতিমধ্যে আমাদের হাতে এসেছে। উক্ত মুচলেকার কপিতে লিখা আছে আগামী ২০/০৮/২০২০ তারিখে চেক ফেরত দিবেন বাদী।
উক্ত অর্থ পাওয়ার পর বাদী শরীয়তপুরের তন্ময় এন্টারপ্রাইজের নামের মামলা উত্তোলন করে নিয়ে তার চেকটি ফেরত দেন। অথচ নগদ টাকা ও অবশিষ্ট পাওনার চেক নিয়েও ভাই ভাই ট্রেডার্স ও মেসার্স শামীম ট্রেডার্সের নামে দায়েরকৃত মামলা উত্তোলন না করে নতুন করে মিমাংসাকারী শরীয়তপুরের অন্যতম ব্যবসায়ী খান এন্টারপ্রাইজের মালিক সোহেল খানের নামে ১৯ লক্ষ টাকার আরো একটি মামলা দায়ের করের মামলাবাজ ও প্রতারক আলাউদ্দিন।
এদিকে আলাউদ্দিনের বিষয়ে খোঁজ নিয়ে জানা যায় তিনি একজন বড় মাপের মামলাবাজ ও প্রতারক। তার কাজই মামলা মোকদ্দমা করে ব্যবসায়ীদের হয়রানী করা এবং ফাঁদে ফেলে অতিরিক্ত টাকা হাতিয়ে নেয়া। বর্তমানে প্রতারক আলাউদ্দিনের তেমন কোনো ব্যবসা নেই। এভাবেই তিনি বিভিন্ন ব্যক্তিদের সঙ্গে প্রতারণার মাধ্যমে অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।
এ বিষয়ে মামলাবাজ ও প্রতারক আলাউদ্দিনের মুঠোফোনে একাধিক বার কল দিলেও তিনি রিসিভ করেন নাই। বিবাদীগন বিজ্ঞ আদালতের নিকট সবিনয় প্রার্থনা জানিয়ে বলেন, বিষয়টি আমলে নিয়ে অতি দ্রুত মামলাবাজ প্রতারক আলাউদ্দিনের প্রতারণা বন্ধ করা দরকার।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর