কুড়িগ্রামে পূজার উপহার পচা পণ্য, ইউএনওকে ক্ষোভে ফেরত

নয়ন দাস,কুড়িগ্রাম জেলা প্রতিনিধিঃ
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ১১ অক্টোবর, ২০২১
  • ৫৪৯ বার পঠিত

 

রানু রাণী বলেন, ‘বহুদূর থেকে আসলাম ত্রাণ নিতে কিন্তু পচা চাল, পচা আলু আর সয়াবিন তেলের বদলে পামওয়েল দিলো। এইগলা দিয়া হামরা কী করব?’

কুড়িগ্রামের চিলমারীতে দুর্গাপূজা উপলক্ষে দেয়া সরকারি ত্রাণের আলু, চাল পচা হওয়ার অভিযোগ তুলে ইউএনওকে আলু ফেরত দিয়েছেন দুই বৃদ্ধ।

এই অভিযোগের সত্যতা পেয়ে বিতরণ বন্ধ রেখে বাকি সামগ্রীর মান যাচাইয়ের পর তা দেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন উপজেলা চেয়ারম্যান বীর বিক্রম শওকত আলী সরকার।

চিলমারীর রাণীগঞ্জ ইউনিয়নের ত্রাণ ফেরত দেয়া ৭০ বছর বয়সী ভানু রাম দাশ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘এই আলু আর চাউল খাইলে তো মুই অসুস্থ হয়্যা পরিম। তাই আমি আর লালচরণ ইউএনও অফিসে দিয়্যা আইছি।’

কুড়িগ্রামে এ বছর ৩২টি মণ্ডপে দুর্গাপূজা হচ্ছে। উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে সোমবার ১৬০টি হতদরিদ্র হিন্দু পরিবারের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করা হয়। ত্রাণ হিসেবে প্রতিটি পরিবারকে দেয়া হয় ১০ কেজি চাল, ৩ কেজি আলু, ১ কেজি চিড়া, আধ কেজি ডাল, চিনি ও তেল।

ত্রাণ পেয়ে রানু রাণী বলেন, ‘বহুদূর থেকে আসলাম ত্রাণ নিতে কিন্তু পচা চাল, পচা আলু আর সয়াবিন তেলের বদলে পামওয়েল দিলো। এইগলা দিয়া হামরা কী করব?’

মুকুল চন্দ্র বলেন, ‘হামরা গরিব বলে কি মানুষ নই? প্যাকেটও ঠিকমতো করেনি। চাল-ডাল একসঙ্গে মিশে গেছে।’

ত্রাণসামগ্রীর এমন বেহালের কথা স্বীকার করেছেন উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি সলিল কুমার বর্মন।

চেয়ারম্যান শওকত আলী বলেন, ‘নিম্নমানের চাল ও পচা আলু দেয়া হয়েছে জানতে পেরে ত্রাণ বিতরণ বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। ত্রাণের মান যাচাই করে বাকিদের মাঝে বিতরণ করা হবে।’

তবে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মাহবুবুর রহমান বলেন, ‘ত্রাণে নিম্নমানের চাল ও অন্যান্য সামগ্রী থাকার কথা নয়। তবুও আমি বিষয়টি ক্ষতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেব।’

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর