গাংনীতে সেনাবাহিনীর চাকরি দেয়ার প্রলোভন দেখিয়ে টাকা নিয়ে উধাও

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • আপডেট টাইম : বুধবার, ৩০ ডিসেম্বর, ২০২০
  • ৫৩৮ বার পঠিত

গাংনীতে সেনাবাহিনীর চাকরি দেয়ার প্রলোভন দেখিয়ে টাকা নিয়ে উধাও

 

মেহেরপুরের গাংনীতে রাজিব(১৯) নামের এক যুবককে সেনাবাহিনীর চাকরি দেওয়ার নাম করে সাড়ে ৪ লক্ষ টাকা নিয়ে উধাও হয়েছে প্রতারক সবুজ। রাজিব উপজেলার রামনগর পশ্চিম পাড়া গ্রামের আকরাম আলী ছেলে ও প্রতারক সবুজ একই উপজেলার চর গোয়াল গ্রামের রূপসী বাংলা ক্লাব পাড়ার রাজমিস্ত্রি বাদল ছেলে সবুজ।

রাজীবের বাবা আকরাম হোসেন জানান, আমার ছেলেকে সেনাবাহিনীর চাকরি দেবে এমন শর্তে সবুজের বাবা বাদল আমার কাছে এসে ধরনা ধরে আমি অনেক ধার-দেনা করে সাড়ে ৪ লক্ষ টাকা তার হাতে তুলে দিই। এ সময় আমার কাছ থেকে স্টাম্প ও ব্ল্যাংক চেক নাই। সবুজের বাবা বলে চাকরি হলে চেক ও স্টাম্প ফেরত দেবে। আপনি যে সবুজকে টাকা দিয়েছেন তার প্রমাণ কি এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি জানান, আমার ছেলে গোপনে টাকা দেওয়ার ভিডিও ধারণ করে রাখে মোবাইলে।

এ বিষয়ে রাজিবের কাছে জানতে চাওয়া হলে রাজিব জানান, সবুজ আমাকে এসএমএস করতে বলে, পরে সেনাবাহিনী থেকে এসএমএস আসার পরে আমাকে নিয়ে সবুজ যশোরে যায়। যশোরে যাওয়ার পর সবুজ আমাকে লাইনে যেতে নিষেধ করে বলে যে তুমি এখানেই থাকো বিকেলে তোমার এপারমেন্ট লেটার আমি নিয়ে আসবো। পরে বিকেল গড়িয়ে সন্ধ্যা হয়ে যায় সবুজ বলে যে এপারমেন্ট লেটার দিতে কয় দিন দেরি হবে তুমি বাসায় ফিরে যাও। সবুজের কথামতো বাসায় ফিরে যায় পরে সবুজকে ফোন দিলে সবুজ আমার সাথে আর যোগাযোগ করে না,পরে জানতে পারি সবুজের বাবা বাড়ি থেকে পালিয়ে গেছে।

সবুজের চাচা মুন্না তার সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করলে তিনি জানান, টাকা নেওয়ার বিষয়টি আমরা শুনেছি এমনকি সবুজ ও সবুজের বাবাকেও বলেছি সবুজের বাবা আমাদেরকে বলে কত টাকা ঘুষ খেয়েছেন ওদের ওকালতি করার জন্য। এ বিষয়ে আমরা আর মাথা দিতে চাই না ওরা যা ইচ্ছে তাই করুক।

নাম প্রকাশ করা যাবে না এমন শর্তে একজন জানান, সবুজ কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজে লেখাপড়া করছে। তার সবচেয়ে বড় নেশা হচ্ছে মেয়ে ও নিত্যনতুন পোশাক। সবুজ মানুষের সাথে প্রতারণা করে বিভিন্ন নামিদামি হোটেল ও বিভিন্ন দামি পোশাক পড়ে থাকেন। যদিও তার বাবা রাজমিস্ত্রি হলেও ঠিকমতো কাজ পান না তার পরেও মাঝে মাঝে প্রায় মোটরসাইকেল পরিবর্তন করেন দামি পোশাক কোথায় পান প্রশ্ন গ্রামের সাধারণ মানুষের।

এ ব্যাপারে সবুজের মুঠোফোনে একাধিক বার ফোন দিয়েও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

গাংনী থানার ওসি বজলুর রহমান জানান, এ বিষয়ে এখন পর্যন্ত কেউ লিখিত অভিযোগ করেনি, অভিযোগ করে তাহলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর