তালবাড়িয়া ইউপির কম্পিউটার অপারেটর রাজিবের বিরুদ্ধে উঠেছে অর্থ বাণিজ্যর অভিযোগ

কে এম শাহীন রেজা, স্টাফ রিপোর্টার, কুষ্টিয়া।।
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ৩১ জানুয়ারী, ২০২৩
  • ১৮৫ বার পঠিত

 কুষ্টিয়া মিরপুর উপজেলার তালবাড়ীয়া ইউনিয়নের হিসাব সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটর রাজিব সরকারি নিয়ম-নীতিকে তোয়াক্কা না করে মাত্রাতিরিক্ত টাকা আদায় করছেন। তিনি জন্ম নিবন্ধনের বয়স সংশোধনে ৪ হাজার থেকে ৫ হাজার টাকা দাবি করেন। তার টাকা দাবির বিষয়টি নিয়ে ইতিমধ্যে একটি ভিডিও ফুটেজ দেশব্যাপী ভাইরাল হয়েছে। উক্ত অভিযুক্ত ব্যক্তিকে টাকা না দিলে মেলে না জন্ম নিবন্ধন। টাকা দেওয়ার পরও ভোগান্তির শেষ নেই।

 

 

জন্ম সনদ বাণিজ্য নিয়ে ক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছেন ইউপির বাসিন্দারা। জেলা পরিসংখ্যান অফিস সূত্রে জানা গেছে, সরকার জন্ম বা মৃত্যুর ৪৫ দিন পর্যন্ত কোনো ব্যক্তির জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন বিনা ফিসে প্রদানের বিধান রেখেছে। শিশুর বয়স ৫ বছর পর্যন্ত ২৫ টাকা ও ৫ বছরের উপরে সব বয়সীদের ক্ষেত্রে জন্ম নিবন্ধন ফি ৫০ টাকা নির্ধারণ করেছে। এছাড়া জন্ম নিবন্ধনের জন্ম তারিখ সংশোধনের আবেদন ফি ১ শ’ টাকা নির্ধারণ করেছে সরকার । জন্ম নিবন্ধন নিতে আসা ভুক্তভোগীরা অভিযোগ করে বলেন, ইউনিয়ন পরিষদে হিসাব সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটর রাজিব জন্ম সনদ ডিজিটাল করতে ১ হাজার নিয়ে থাকেন।

 

এছাড়া বয়স সংশোধনে ৪ হাজার থেকে ৫ হাজার টাকা দাবি করেন। সরকারি নিয়ম নীতি উপেক্ষা করে ওই হিসাব সহকারি এখানে জন্ম সনদ নিয়ে বাণিজ্য শুরু করেছেন। তাই তাকে আইনের আওতায় আনার দাবি জানাচ্ছি। এ বিষয়ে অভিযুক্ত তালবাড়িয়া ইউনিয়নের হিসাব সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটর রাজিব বলেন, জন্ম নিবন্ধনের যদি সরকার নির্ধারিত ফি ৫০ টাকা। সেখানে ১০০ টাকা নিচ্ছি। ১০০ টাকার ফি ১শ’ ৫০ পঞ্চাশ টাকা বা ২শ’ টাকা নেই।

 

 

এছাড়া ৪ হাজার বা ৫ হাজার টাকা দাবির বিষয়টি তিনি সত্য নয় বলে জানান। মিরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বলেন, আপনাদের মাধ্যমে বিষয়টি জানতে পারলাম। সরকার নির্ধারিত ফি থেকে বেশি টাকা নেওয়া অপরাধ। সেখানে সেবা গ্রহীতাদের হয়রানি করা হয় কিনা তা খতিয়ে দেখা হবে। এই বিষয়টি দ্রুত তদন্ত করা হবে। তদন্তে অভিযোগের সত্যতা পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। জন্ম সনদে অতিরিক্ত টাকা আদায় করলে কেউ পার পাবেন না।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর