নৌকা কিনতে পাওয়া যায় কিন্তু মানুষের মন কিনতে পাওয়া যায়না- আনোয়ার পাশা

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • আপডেট টাইম : শনিবার, ১৮ ডিসেম্বর, ২০২১
  • ১৮৫ বার পঠিত

দেশের ৩য় ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার ষোলটাকা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আনোয়ার পাশাকে আজ শনিবার (১৮ ডিসেম্বর) বিকেল ০৩ ঘটিকায় গণসংবর্ধনা দিয়েছে ইউনিয়নবাসী।

আনোয়ার পাশা’র গণসংবর্ধনা অনুষ্ঠানে ষোলটাকা ইউনিয়নের হাজারো সাধারণ মানুষের ভীর জমে। ইউনিয়নবাসী তাদের নির্বাচিত চেয়ারম্যানকে ফুলের মালা পরিয়ে শুভেচ্ছা জানান। আনোয়ার পাশা আনারস মার্কা প্রতীকে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।

চেয়ারম্যান আনোয়ার পাশা ইউনিয়নবাসীর উদ্দ্যেশে তার বক্তব্য বলেন, আমি মৃত্যুকে ভয় পায়না। আমি একবার মরেই গিয়েছি। আওয়ামী লীগ করার অপরাধে ক্রসর্ফায়ারের আসামি ছিলাম। সেটাই আমার প্রথম মৃত্যু। আমি ষোলটাকা ইউনিয়নের গোলাম হিসেবে সব সময়ের জন্য প্রস্তুত। আপনাদের যেকোনো প্রয়োজনে রাত দিনে যেকোনো সময় আমাকে সঙ্গে পাবেন।

আওয়ামী লীগের নেতাদের তীব্র সমালোচনা করে আনোয়ার পাশা বলেন, জনগণের রায় জনগণ দিয়েছে। আওয়ামী লীগের মনোনয়ন বাণিজ্য করে নৌকা পাওয়া যায় কিন্তু জনগণের মন পাওয়া যায়না। জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এম.এ খালেকের টেবিল সিল ও একাধিকবার ভোট মারার চিন্তা বোকার সঙ্গে বসবাস জনগণ তার বড় প্রমান দিয়েছে।

আক্ষেপ প্রকাশ করে তিনি বলেন, আমি নৌকার বাইরের লোক না। আমার শরীরে আওয়ামী লীগের রক্ত। কিন্তু আমাদের জোড়া করে নৌকার বাইরে বের করে দেওয়া হয়েছে। টাকার বিনিময়ে নৌকা দিয়ে যোগ্যদের বাদ দেওয়া হয়েছে। সাহিদুজ্জাম খোকন এমপির পরিবার এবং উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এম.এ. খালেকের পরিবার প্রচার প্রচারণায় নেমেও কাজ হয়নি। কারণ ভোট চেয়ে নিতে হয় জোর করে পাওয়া যায়না।

ষোলটাকা ইউনিয়ন পরিষদের নতুন সংগ্রামের ঘোষণা দিয়ে তিনি আরো বলেন, আমার বাবার বয়স্ক ভাতা, আমার মায়ের বিধবা ভাতা, আমার ছেলের জন্মনিবন্ধনের জন্য ৪ হাজার থেকে ৫ হাজার টাকা পর্যন্ত নেওয়া হয়েছে। সমস্ত দুর্নীতি আমি জনগণকে নিয়ে বন্ধ করবো। সেবা আপনার বাড়িতে পৌঁছে দিবো। সেবা নেওয়ার জন্য আমার কাছে আসতে হবেনা।

 

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর