মেহেরপুরে ফসলি জমির মাটি কেটে বাধা হচ্ছে রাস্তার পাড়

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • আপডেট টাইম : বুধবার, ২৯ ডিসেম্বর, ২০২১
  • ২১৪ বার পঠিত

মেহেরপুরে রাস্তা প্রশস্তকরণে অবৈধভাবে ফসলি জমির মাটি কাটার অভিযোগ উঠেছে ঠিকাদারের বিরুদ্ধে। প্রায় ২২শ মিটার রাস্তার পাশের কলা,তুলা,লিচু বাগান, আলুসহ বিভিন্ন জমি থেকে মাটি কেটে দেওয়া হচ্ছে রাস্তার পাড়ে। এতে একদিকে যেমন ক্ষতির মুখে পড়েছে জমির ফসল, অন্যদিকে রাস্তার একেবারে পাশে থেকে মাটি কাটায় রাস্তা টেকসই হওয়া নিয়ে উঠেছে অনেক প্রশ্ন। মেহেরপুর সদর এলজিইডি’র দেওয়া তথ্য অনুযায়ি মেহেরপুর সদর উপজেলার বামনপাড়া, আশরাফপুর-টেংরামারি সড়কটি প্রশস্তকরণের কাজটি পাই কুষ্টিয়ার সৈকত এন্টারপ্রাইজ।

 

রাস্তাটি ১০ ফিট থেকে ১৬ ফিটে প্রশস্তকরণে ব্যায় ধরা হয়েছে ১ কোটি ৬৯ লাখ ১৭ হাজার ৫৬০ টাকা। পরে মেহেরপুরের নূর ইসলাম এন্টাপ্রাইজ কাজটি করছে বলে জানা গেছে। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, পাশের ফসলের জমি থেকে মাটি কেটে দেওয়া হচ্ছে রাস্তার পাড়ে। এলাকার চাষিদের বোঝানো হয়েছে, সরকারি কাজে বাধা দিলে সমস্যা হবে। তাই অবৈধভাবে মাটি কাটলেও প্রতিবাদ করতে সাহস পাচ্ছে না অনেকেই। আশরাফপুর গ্রামের এসোব আলী নামের এক চাষি জানান, আমার ২৩ কাটা জমির প্রায় ৪ কাটার মাটি কেটে নিয়েছে ঠিকাদার।

 

আমাকে বলা হয়েছে সরকারি কাজে মাটি দিতে হবে। পরে আমি আর কিছু বলিনি। তবে ঠিকাদার নূর ইসলামের দাবি অনুমতি নিয়েই মাটি কাটা হচ্ছে। স্থানীয় চেয়ারম্যান মাটি কাটতে বলেছে। এ বিষয়ে চেয়াম্যানের সাথে মোবাইলে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেনি। তাই তার বক্তব্য পাওয়া যায়নি।মেহেরপুর সদর উপজেলা এলজিইডি,র প্রকৌশলী আব্দুল হামিদ বলেন, এলাকার উন্নয়নের স্বার্থে আপনাদের সহোযোগীতা করতে হবে। ফসলি জমি থেকে মাটি কাটা অবৈধ হলেও, পরিবহন খরচ বরাদ্দে নেই বলে পাশের জমি থেকে মাটি কাটা হচ্ছে। এছাড়াও তিনি বলেন, স্থানীয় চেয়ারম্যান আনারুল ইসলামের সহযোগীতাই মাটি কাটা হচ্ছে। চেয়ারম্যান আমাকে বলেছে, কেউ কিছু বললে আমি দেখবো, আপনি মাটি কাটেন।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর