হরিণাকুণ্ডুতে গোলাপী’র ঘর পুড়ে ছাই

হরিণাকুণ্ডু ঝিনাইদহ থেকে বাচ্চু মিয়া
  • আপডেট টাইম : বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪
  • ৪৭ বার পঠিত

 

 

 

 

ঝিনাইদহের হরিণাকুণ্ডু উপজেলায় বৈদুতিক শর্টসার্কিট থেকে আগুন লেগে নফদার আলী বিশ্বাস (৪০) নামে এক গরিব হতো দরিদ্রের লক্ষাধিক টাকা ও বসতঘর পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। আগুনে পুড়া হতো দরিদ্র নফদার আলী উপজেলার জোড়াদাহ ইউনিয়নের হরিশপুর গ্রামের মাহাতাপ বিশ্বাসের ছেলে। জানা যায় ১ ছেলে ও ১ মেয়ে সহ চার সদস্যের পরিবার চালান নফদার আলী বিশ্বাস। দিন এনে দিন খাওয়া দিনমুজুরী নফদার গরু পালন ও কৃষি কাজ করেই চলে সংসার। এক ছেলে সবে মাত্র দাখিল ষষ্ঠ শ্রেণীতে পড়ে। সেই আগুনের লেলিহান শিখায়া নিভিয়ে দিয়ে গেছে তার শিক্ষার উপকরণ খাতা কলম বই।
সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী বিকালে তার ঘরে আগুন লেগে টেলিভিশন,নগত লক্ষাধিক টাকা, চেয়ার টেবিল,চাউল,খাতা কলম,বই,বাক্স,খাট,কাপুড়-চুপুড় সব পুড়ে ছাই হয়ে যায় এমনটাই জানালেন গোলাপী খাতুন। আমি ঘরেই বসে ছিলাম এমন সময়ে টিভিতে আগুন দেখে আমি চিৎকার চেঁচামেচি করলে পাশের লোকজন ছুটে আসতে আসতে দাও দাও করে আগুন সারা ঘরে ছড়িয়ে পড়ে। আমার স্বামী’র হাত-মুখ,গলা পুড়ে গেছে,আবার আমার পরণের কাপুড় ছাড়া আর কিছুই নেই আমি এখন নিঃস্ব হয়ে গেলাম এমন আহাজারিতে যেন আকাশ বাতাশ ভারী হয়ে গেছে গোলাগী’র।

প্রতিবেশী মোবারেক বিশ্বাস জানান, বৈদুতিক শর্টসার্কিট থেকে আগুন লেগে নফদার আলী’র ঘর-বাড়ি পুড়ে গেছে।চিৎকার চেঁচামেচি শুনে আমি ছুটে আসি আগুন দাও দাও করে জ্বলছে দেখে তখনই মিটার বাষ্ট হয়ে যায়, সাথে সাথে আমরা বিদুৎ অফিসে ফোন দিয়ে বিদুৎ বন্ধ করার কথা বলি। পরে ফায়ার সার্ভিসের লোকজন যখন আসে তখন আগুনে পুড়ে সব শেষ হয়ে গেছে। বিদুৎ বন্ধ হয়ে গেলেও থামেনি আগুনের দাপট। নিমিশেই শেষ হয়ে যায় সব।

খুটে খেতে একটিও দাঁনা পর্যন্ত থাকলো না। আমি এমন ভয়াবহতার কথা শুনে এসে দেখি আগুনে পুড়ে সব শেষে হয়ে। আমি যতদূর পারি সরকারি সহায়তা করবো বলেও জনান মহিলা ইউপি সদস্য সোহাগী খাতুন।
ট্রিপুল নাইনে ফোন পেয়ে ১১ সদস্যের একটি ইউনিট নিয়ে আমি তাৎক্ষনিক ঘটনাস্থলে ছুটে গিয়ে দেখি তাঁহার বসত ভিটা পুড়ে নিঃশেষ হয়ে গেছে। তবে দুঃখের বিষয় লোকটির লক্ষাধিক নগত টাকা পুড়ে গেছে। ঐ বাড়ি সহ পাশের একটি বাড়িও পুড়ে গেছে।খবর পেয়ে আমরা পৌঁছানোর আগেই স্থানীয়রা আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে বলেও জানান হরিণাকুণ্ডু ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স স্টেশন অফিসার মোঃ মাসুদ আলী।

হরিণাকুণ্ডু থানা পুলিশ সূত্রে মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী জানা গেছে, বৈদুতিক শর্টসার্কিট থেকে আগুন লেগে বশত ভিটা পুড়ে যাওয়ার বিষয়ে থানায় ৭০ হাজার টাকা সম্পূর্ণ এবং ৫৫ হাজার আংশিক পুড়ার ঘটনায় ,গতোকাল সোমবার রাত ৮:৩০ মিনিটে একটি জিডি হয়েছে। যার নং ১২১৭.। আগুন লেগে নফদার আলী’র ঘরবাড়ি পুড়ে যাওয়ার ঘটনায় তাৎক্ষনিক ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন জোড়াদহ ইউপি চেয়ারম্যান জাহিদুল ইসলাম বাবু মিয়া। তাতক্ষনিক সহযোগীতার জন্য পাশে দাঁড়ান দেন চাউল-ডাউল,কাপুড়-চুপুড়। এছাড়াও ঐ পরিবারের নগত টাকা সহ প্রতিশ্রুতি দেন ঘর নির্মাণের উপকরণ টিন।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর